1. multicare.net@gmail.com : নিউজ জনতার সময় :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৪:১৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
শেখ হাসিনার উপহার পেলেন ১৮ হাজার গৃহহীন পরিবার।। ভোলার চরফ্যাশনে বিয়ের প্রতারণা থেকে বাছতে চায় সাগর।। উপজেলা নির্বাচন চরফ্যাসনে চেয়ারম্যানসহ তিন প্রার্থীর নিরংকুশ বিজয়।। চরফ্যাশনে শালিসি করে দিবে বলে ঢেকে নিয়ে স্ত্রী কে দিয়ে লাঞ্চিত করার অভিযোগ।। ভোলার চরফ্যাশনে সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে ‘অবহেলা ও ভুল চিকিৎসার অভিযোগ’ ভোলার চরফ্যাশনে বিয়ের নামে ১০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ।। চরফ্যাশনে রিকশা চালককে মারধর করে ফাঁকা স্টাম্পে স্বাক্ষর নিলেন ইউপি সদস্য চরফ্যাশনে চরমানিকায় জেলে চাল বিতরণ অনিয়ম।। ভোলার চরফ্যাশন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ১০ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল ভোলার চরফ্যাশনে মেঘনা নদীর ঢালের মাটি কাটায় অর্থদন্ড।।

ভোলার চরফ্যাশনে সুবিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে অভিযোগ দাখিল।।

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১ আগস্ট, ২০২৩
  • ৩৫ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার।। ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার শশীভুশন থানাধীন এয়াজপুর ইউনিয়নের০ ৬ নং ওয়ার্ডের মোঃ আঃহালিমের ছেলে মোঃগোলাম মাওলা (লোকমান ) মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সুবিচার চেয়ে ২ জনের বিরুদ্দে অভিযোগ দাখিল করেন।
প্রতিপক্ষরা হলো,এয়াজপুর ইউনিয়নের মৃত সামসল হকের দুই ছেলের বিরুদ্ধে তারা হলো জুলফিকার আলী মোস্তাফা। ২,তোফাজ্জল হোসেন।
ঘটনার তারিখ(২২ ই এপ্রিল২০২২) ইং
ঘটনাটি ঘটে শশীভুশন থানাধীন এয়াজপুর ০৬ ওয়ার্ডে আমার বসত বাড়িতে জোর করে দখল করার চেষ্টা করে প্রতিপক্ষরা।
গোলাম মাওলা বলেন আমি অত্যান্ত অসহায় ও নিরুপায় হইয়া ন্যায় বিচারের আশায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মানবতার মায়ের কাছে উল্লেখিত প্রতিপক্ষ গংদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনয়ন করিয়াছি,তিনি বলেন প্রতিপক্ষরা দুর্ধান্ত সন্তাসী,ত্রাস সৃষ্টিকারী,পেশিশক্তি বলে বলিয়ান, ক্ষমতাধর, জবর দখলবাজ,অত্যাচার নির্যাতনকারী,শান্তি শৃঙ্খলা বিনষ্টকারী, আইন কানুনে অবাধ্য প্রকৃতির লোক । প্রতিপক্ষরা ও আমি একই ওয়ার্ডে বসবাস করি।কান্ন কন্ঠে আক্ষেপ করে মোঃগোলাম মাওলা বলেন আমি গরিব ও অসহায় হওয়ায় প্রতিপক্ষের অত্যাচার ও নির্যাতনে বাড়ি ঘরে শান্তিপুর্ন ভাবে বসবাস করিতে পারতেছি না। তাহাতে প্রতিপক্ষ গং আমাকে অসহায় পাইয়া দীর্ঘদিন যাবত বাড়ি ঘর হইতে উৎখাতের জন্য নির্যাতন করে আসছে। আমি ও আমার পরিবার মুখ বুঝিয়া সন্তাসীদের অত্যাচার ও নির্যাতন সহ্য করে আসিতেছে। তাহাতে ঘটনার দিন ও তারিখ ঘটনার স্থানে প্রতিপক্ষ গং পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে দা,ছেনী, শাবল, খন্তা, লাঠি সোটা নিয়া অনধিকার আমার ভোগ দখলিয় পুকুরের মাছ ও বাড়িতে প্রবেশ করিয়া আমার ভোগদখল বাড়ির গাছ কাটার পায়তারায় লিপ্ত থাকে। আমি দেখিতে পাইয়া দ্রুত ঘটনাস্থলে যাইয়া আসামিদেরকে গাছ কাটা বাধা প্রদান করিলে তাদের সহিত আমার বাঁধ বিবাদ শুরু হয়। একপর্যায়ে এক নং প্রতিপক্ষ আমাকে কিছু বুঝে ওঠার আগেই খুন করার উদ্দেশ্যে হাতে থাকা লোহার শাবল দিয়ে মাথা লক্ষ্য করিয়া বাড়ি দিতে উদ্দ্যত হইলে আমি আত্মরক্ষায় একটু সরিয়ে গেলে উক্ত বাড়ী মাটিতে পরে । আমি ভয়ে পড়িয়া গেলে দুই নং প্রতিপক্ষ আমাকে খুন করার উদ্দেশ্যে তাহার হাতে থাকা কাঠের বাঘা দিয়া মাথায় বারি দিলে আমি তাৎক্ষণিক জ্ঞান হারিয়ে ফেলি । আমার স্ত্রী হৈ-চৈ শুনিয়া আমাকে রক্ষায় ছুটিয়া এলে ১/২ নং প্রতিপক্ষ তাহাকে এলোপাথারী ভাবে লাঠিপেটা করিয়া মারাত্মক ভাবে আহত করেন। তাহারা আমার স্ত্রীকে বিবস্ত্র করিয়া শ্লীলতাহানি করে ২ নং আসামি আমার স্ত্রীর গলায় থাকা একটি আটানা ওজনের স্বর্নের চেইন ছিনাইয়া নিয়া যায়। আমার জ্ঞান শূন্য অবস্থায় আসামীরা আমাকে খুন করার উদ্দেশ্যে এলোপাথাড়ি ভাবে মারধর করিয়া শরীরে বিভিন্ন স্থানে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করেন। একপর্যায় প্রতিপক্ষ গংরা আমাকে মৃত ভাবিয়া দ্রুত ঘটনাস্থান ত্যাগ করেন। যাওয়ার সময় প্রতিপক্ষরা আমার স্ত্রীকে কঠোর ভাষায় হুমকি দিয়ে বলেন মামলা মোকদ্দমা করিলে আমাদের খুন করিয়া ফেলবেন।তিনি বলেন আমাকেও আমার স্ত্রীকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সাক্ষীরা চরফ্যাশন উপজেলা সাস্হ কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। দীর্ঘ পাঁচ দিন পার হলে আমরা চিকিৎসা শেষ করে বাড়ীতে ফিরে আসি। বর্তমানে আমি নিরাপত্তাহিনতা অবস্থায় আছি। মাঝে মাঝে মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলি।প্রতিপক্ষরা আবার আমার বাড়ীর গাছ কেটে গোপনে বিক্রি করার পায়তারা করছেন । আমার স্ত্রী মোকাদ্দমা করিতে চাইলে স্থানীয়ভাবে আপস করিয়া দিবেন বলে কালখেপন করেন।ইদানিং প্রতিপক্ষরা আমাকে হুমকি দিয়া বলেন এটা নিয়া বারাবাড়ি করলে আমার ডান পা ভাঙ্গিয়া লুজ করিয়া দিবেন।এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের কাছে বিচার চাইলে তাহারা আসামি গং প্রভাবশালী হওয়ায় বিচার করিতে অপারগতা প্রকাশ করি। স্থানীয় থানা আসামি গং প্রভাবশালী হওয়ায় মামলা নিতে অপরগতা প্রকাশ করিয়া আমাকে কোর্টে আশ্রয় নেওয়ার পরামর্শ প্রদান করেন।তারপরও আমি আমার বিচার এখনোও পাইনি। আপনাদের কাছে মামলা টির বিচার সাক্ষ্য প্রমানে আমি ঘটনা প্রমাণের সক্ষম হইব বলে তিনি জানান । আমি চিকিৎসাধীন থাকায় আপনাদের কাছে অভিযোগ করিতে বিলম্ব হয়। আমার জমির তফসিলঃজেলাঃভোলা,উপজেলা চরফ্যাশন, ভোলাঃএয়াজপুর,জে এল নং৮০, খতিয়ান নং১১৭৭, দাগ নং ১৯৬৬, ১৯৬৪,১৯৬৯,১৯৭২, খতিয়ান নং ৪১৭, দাগ নং ১৯৬৪,১৯৬৫,১৯৬৬,১৯৬৭,১৯৬৮,১৯৬৯,১৯৭০,১৯৭১,১৯৭২ নং দাগভুক্ত জমি।তিনি বলেন এই তফসিল অনুযায়ী আমার জমি যদি পাই তাহলে আমাকে ব্যাবস্হা করে দিবেন। জুলফিকার আলী মোস্তফা কে মুঠো ফোনে ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেওয়া যায় নি। শশীভুশন থানার অফিসার্স ইনচার্জ ম.এনামুল বলেন বিষয়টি আমি শুনেছি তদন্ত করে জানলাম বিষয় টি কোর্টে মামলা চলমান রয়েছে তারপর তাদেরকে আইনি পরামর্শ দিয়েছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
Theme Customized BY LatestNews