1. multicare.net@gmail.com : নিউজ জনতার সময় :
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৪:০৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
শেখ হাসিনার উপহার পেলেন ১৮ হাজার গৃহহীন পরিবার।। ভোলার চরফ্যাশনে বিয়ের প্রতারণা থেকে বাছতে চায় সাগর।। উপজেলা নির্বাচন চরফ্যাসনে চেয়ারম্যানসহ তিন প্রার্থীর নিরংকুশ বিজয়।। চরফ্যাশনে শালিসি করে দিবে বলে ঢেকে নিয়ে স্ত্রী কে দিয়ে লাঞ্চিত করার অভিযোগ।। ভোলার চরফ্যাশনে সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে ‘অবহেলা ও ভুল চিকিৎসার অভিযোগ’ ভোলার চরফ্যাশনে বিয়ের নামে ১০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ।। চরফ্যাশনে রিকশা চালককে মারধর করে ফাঁকা স্টাম্পে স্বাক্ষর নিলেন ইউপি সদস্য চরফ্যাশনে চরমানিকায় জেলে চাল বিতরণ অনিয়ম।। ভোলার চরফ্যাশন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ১০ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল ভোলার চরফ্যাশনে মেঘনা নদীর ঢালের মাটি কাটায় অর্থদন্ড।।

ভোলার চরফ্যাশনে সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে ‘অবহেলা ও ভুল চিকিৎসার অভিযোগ’

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪
  • ১৫ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার।।ভোলার চরফ্যাশনে সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামক এক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অবহেলা ও ভুল চিকিৎসা প্রদানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ গৃহবধুর স্বামী বাদী হয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ২৫ এপ্রিল নজরুল নগর ৪নং ওয়ার্ড নিবাসী মৃত মোঃ সাহেদ আলীর ছেলে মোঃ আক্তার হোসেন এর স্ত্রী মোছাঃ রাবিয়া বেগম এর সিজার করার জন্য চরফ্যাশনের সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভর্তি করেন। পরবর্তীতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অপারেশন থিয়েটারে সিজার করে ও অপারেশনের পর মোট ২৫ টি সেলাই দেয়। পরবর্তীতে আক্তার জানতে পারে অপারেশনের পর ডাক্তার অপারেশন থিয়েটার ত্যাগ করে এবং তার এসিস্ট্যান্ট জাহিদুল ইসলাম ও জাহিদুল ইসলাম এর স্ত্রী নার্স স্বর্ণাকে দিয়ে সেলাই করায়। হাসপাতালে ৪ দিন ভর্তি থাকার পর কর্তৃপক্ষ রোগীকে ছাড়পত্র দেয় ও ৭ দিন পর এসে সেলাই খোলার জন্য বলে। আক্তার আরও বলেন আমার স্ত্রী কে ৭ দিন পর হাসপাতালে সিজারের সেলাই কাটার জন্য যাই। কর্তৃপক্ষ সেলাই কাটতে গিয়ে দেখে সেলাই জোড়া নেয়নি ও ডিউটিরত ডাক্তার বলেন ২ নম্বর সুতা দিয়ে সেলাই দেওয়ার কারণে সেলাই জোড়া লাগেনি ও ঘাঁ শুকায়নি। তখন এ ব্যপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে প্রশ্ন করলে তখন তারা আক্তারকে বিভিন্ন ভাবে ভুল বুঝানোর চেষ্টা করে এবং তাদের অযোগ্যতাকে ঢাকার জন্য বিভিন্ন মিথ্যার আশ্রয় নেয়। কথাবার্তার একপর্যায়ে তাদের সাথে বাকবিতন্ডা হয়। তখন তারা আমার স্ত্রীকে একা ফেলে আমার উপর চরাও হয় এবং আমাকে মারধর করে একটা রুমের মধ্যে ঢুকিয়ে নির্যাতনের চেষ্টা করে। পরবর্তীতে আমি জোরাজুরি করলে রুমে ঢুকাতে না পেরে হসপিটাল থেকে বের করে দেয়। এরপর আমার স্ত্রীকে নিকটবর্তী নিউ আদ-দীন হসপিটাল, চরফ্যাশনে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করি এবং সেখানে গিয়ে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী শরীরের নির্দিষ্ট অংশের মাংস কেটে ফেলে দিতে হয় এবং প্রতিদিন ২ বার ড্রেসিং করতে হয়। এইভাবে ১১ দিন কেটে যায়। পরবর্তীতে আবার সেলাই করে। নতুন ভাবে এগুলো করার জন্য আমার আর্থিক ভাবে ৬০ হাজার টাকা অতিরিক্ত খরচ হয় যা একজন দিনমজুর হিসেবে খরচ যোগানে কষ্টসাধ্য ব্যপার। সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর ভুল চিকিৎসার কারণে খরচ অতিরিক্ত ৬০ হাজার টাকা বিভিন্নভাবে ধার দেনা করে প্রদান করতে হয়। আক্তার আরো জানায়, সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর ভুল চিকিৎসা করেও তাদের নিকট থেকে ৪৫ হাজার টাকা গ্রহণ করে। এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে আক্তার।
এ ব্যপারে তথ্য সংগ্রহকালে সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর বিরুদ্ধে একই রকম আরো অভিযোগ পাওয়া যায়।সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কতৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করলে তারা বলেন মারধরের ঘটনা ঘটেনি কিন্তু রোগীর অসচেতনতার কারণে সেলাই করা যায়গায় ইনফেকশন হতে পারে এটা হাসপাতাল কতৃপক্ষ দায়ী নয়।এবিষয়ে চরফ্যাশন থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোঃশাখাওয়াত হোসেন বলেন আমি এবিষয়ে কোন অভিযোগ পাইনি অভিযোগ পেলে আইন গত ব্যাবস্হা নেব।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
Theme Customized BY LatestNews