1. multicare.net@gmail.com : নিউজ জনতার সময় :
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
শেখ হাসিনার উপহার পেলেন ১৮ হাজার গৃহহীন পরিবার।। ভোলার চরফ্যাশনে বিয়ের প্রতারণা থেকে বাছতে চায় সাগর।। উপজেলা নির্বাচন চরফ্যাসনে চেয়ারম্যানসহ তিন প্রার্থীর নিরংকুশ বিজয়।। চরফ্যাশনে শালিসি করে দিবে বলে ঢেকে নিয়ে স্ত্রী কে দিয়ে লাঞ্চিত করার অভিযোগ।। ভোলার চরফ্যাশনে সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে ‘অবহেলা ও ভুল চিকিৎসার অভিযোগ’ ভোলার চরফ্যাশনে বিয়ের নামে ১০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ।। চরফ্যাশনে রিকশা চালককে মারধর করে ফাঁকা স্টাম্পে স্বাক্ষর নিলেন ইউপি সদস্য চরফ্যাশনে চরমানিকায় জেলে চাল বিতরণ অনিয়ম।। ভোলার চরফ্যাশন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ১০ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল ভোলার চরফ্যাশনে মেঘনা নদীর ঢালের মাটি কাটায় অর্থদন্ড।।

চরফ্যাশনে প্রধান শিক্ষক স্কুলে না গিয়ে একাধিক হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করার অভিযোগ।।

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৩৮ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টর ভোলা থেকে ॥ চরফ্যাশন উপজেলার আসলামপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ উত্তর আসলামপুর খাসপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোদাচ্ছের ও সহকারী জিন্নাত আরার বিরুদ্ধে মাসের পর মাস স্কুলে না এসে বেতন ভাতা ও উপবৃত্তির টাকা উত্তোলনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সরেজমিন গিয়ে এমন তথ্য ফুটে উঠেছে।এসংবাদকর্মী স্কুলে গিয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক মোদাচ্ছের ও সহকারী শিক্ষক জিন্নাত আরাকে উপস্থিত পাওয়া যায়নি।
স্কুলের ২ সহকারী কে তাৎক্ষণিক ২জনের বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, প্রধান শিক্ষক রিতিমত স্কুলে আসেনা তিনি সপ্তাহে ২ দিন এসে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে দ্রুত চলে যায়,তারা সব সময়ই বাসায় থাকতে পছন্দ করেন । সহকারী শিক্ষক জিন্নাত আরা অসুস্থ দেখিয়ে ছুটিতে থাকেন। চলতি ২৩সালে আগষ্ট, সেপ্টেম্বর, আজ অক্টোবরের ৮ তারিখেও সহকারী শিক্ষক জিন্নাত আরা স্কুলে আসেনাই কি বলব আমরা দুই সহকারী শিক্ষকই এই স্কুলটি চালিয়ে যাচ্ছি তবে তাদের প্রধান শিক্ষককে অযোগ্য হিসেবে মন্তব্য করেন। স্কুলের এই ২ শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রায় মাসের পর মাস পর্যন্ত স্কুলে নিয়মিত পাঠদান করেননা। মাঝে মাঝে এসে শিক্ষক হাজিরা খাতায় সই স্বাক্ষর দিয়ে প্রতিমাসে বেতন ভাতা উত্তোলন করেন।এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিরা বলেন এই ২ শিক্ষকের ফলে অনেক ছাত্র ছাত্রী অনুপুস্থিত থাকে। এতে স্কুলে পাঠদান কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।

শিক্ষক হাজিরা খাতায় দেখা যায়,সহকারী শিক্ষক জিন্নাত আরা আগষ্ট পর্যন্ত/২৩, হতে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত মাতৃত্ব কালিন ছুটি রয়েছে।এলাকা বাসি বলেন যোগদানের মধ্যে এই ২ শিক্ষকের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি উপজেলা শিক্ষা অফিস । ফলে তারা পূর্বের ন্যয় স্কুলে অনুপস্থিত থাকেন বলে জানা যায়।অভিভাবকরা জানান পুরাতন বিল্ডিংটি অবস্থা খুবই খারাপ এখানে ছাত্র ছাত্রী ক্লাস করাটা রিক্সা । এই ব্যপারে সহকারী শিক্ষক জিন্নাত আরা বলেন, আমি অসুস্থ থাকার কারণে স্কুলে যেতে পারিনি তবে আমি ছুটে নিয়েই বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছি।প্রধান শিক্ষককে মুঠো ফোনে ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেওয়া যায় নি । উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার অহিদুল ইসলাম বলেন,স্কুলের বিষয়গুলো আমরা খতিয়ে দেখবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
Theme Customized BY LatestNews