1. multicare.net@gmail.com : নিউজ জনতার সময় :
বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০৮:৪৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
শেখ হাসিনার উপহার পেলেন ১৮ হাজার গৃহহীন পরিবার।। ভোলার চরফ্যাশনে বিয়ের প্রতারণা থেকে বাছতে চায় সাগর।। উপজেলা নির্বাচন চরফ্যাসনে চেয়ারম্যানসহ তিন প্রার্থীর নিরংকুশ বিজয়।। চরফ্যাশনে শালিসি করে দিবে বলে ঢেকে নিয়ে স্ত্রী কে দিয়ে লাঞ্চিত করার অভিযোগ।। ভোলার চরফ্যাশনে সৌদিয়া হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে ‘অবহেলা ও ভুল চিকিৎসার অভিযোগ’ ভোলার চরফ্যাশনে বিয়ের নামে ১০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ।। চরফ্যাশনে রিকশা চালককে মারধর করে ফাঁকা স্টাম্পে স্বাক্ষর নিলেন ইউপি সদস্য চরফ্যাশনে চরমানিকায় জেলে চাল বিতরণ অনিয়ম।। ভোলার চরফ্যাশন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ১০ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল ভোলার চরফ্যাশনে মেঘনা নদীর ঢালের মাটি কাটায় অর্থদন্ড।।

চরফ্যাশনে চর মাদ্রাজ ইউনিয়নের সংরক্ষিত মহিলা আসনের ইউপি সদস্যের উপর হামলার পর এবার সোহেলের উপর হামলা ও অপহরণ করার চেষ্টা।

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ২৬ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৩৩ বার পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার।।ভোলার চরফ্যাশনে চর মাদ্রাজ ইউনিয়নের ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের ইউপি সদস্য মোসাঃ রাবেয়া বেগম (৪০)গং এর উপর অতর্কিত হামলা পর,শুরু হয় আরেকটি ঘটনা গত ১৭ জানুয়ারী ২০২৪ ইং রোজ বুধবার স্থানীয় চর মাদ্রাজ ইউনিয়নের চর নিউটন ৫ নং ওয়ার্ডে দুপুর ১ টার সময় এ ঘটনা ঘটে।এঘটনায় মোঃজামাল পিটার ১০ জনকে বিবাদী করে থানায় একটি মামলা এজাহার দায়ের করেন। অভিযুক্তরা হলেন পুর্বমাদ্রাজ সাকিনের ৭ নং ওয়ার্ডের মোঃ মোঃশামীম (৩৫)মোঃ হৃদয়(২৫)মোঃবাবুল (২০)মোঃ নাসির (৩৭) উভয় পিতাঃ কাঞ্চন মাঝী।মোঃরাকিব(২৪)মোঃরিয়াজ(২০)পিতা আলমগীর।আনোয়ার হোসেনের ছেলে আল আমিন(২৫)রুহুল আমিনের ছেলে মোঃইয়াছিন(২০)উভয় সাং চর নিউটন ৫ নং ওয়ার্ড। আবদুল মন্নান মাঝীর ছেলে মোঃলোকমান(২৫)সাং মোহাম্মদপুর ৬ নং ওয়ার্ড। রুহুল আমিন মাঝীর ছেলে মোঃ রাজিব(২২)সহ অজ্ঞাত আরো ৪/৫ জন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায় বিবাদীরা একই ইউনিয়নের ও একই এলাকার লোকজন। অভিযোগকারী মোঃ জামাল পিটার(৫৫) বর্তমানে চরমাদ্রাজ ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড এর একজন জেলে।পূর্বের শত্রুতার জের ধরে বিবাদীরা তার ছেলে সোহেল কে দীর্ঘদিন যাবত ভয়ভীত ও হুমকি প্রদর্শন করে আসছে। ঘটনার কিছুদিন পূর্বে অভিযোগের স্বাক্ষী মোঃ দেলোয়ার, মোঃনুর মোহাম্মদ, মোঃসাইফুল ইসলাম,মোঃসাদ্দাম সহ অনেকের সাথে ঝগড়া বাজানোর জন্য চেষ্টা করেন।বিবাদীদের পূর্বের ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তাদের সাথে রাজনৈতিক বিষয় নিয়া ঝগড়ার সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে বিবাদীরা তার বিরুদ্ধে বর্তমান ইউপি সদস্য মোতালেব বাড়ীতে আসতে পারবেনা ও আসলে প্রানে মেরে ফেলবে বলে এর বিরুদ্ধে অপবাদ দেওয়ায় সোহেল ও বাকের প্রতিবাদ করে। এরই ধারাবাহিকতায় ঘটনার দিন ১৭ জানুয়ারী ২০২৪ দুপুর অনুমান ১টার সময় বাদী জামাল পিটারের ছেলে মোঃসোহেল ও সাইদুল হক মাঝীর ছেলে মোঃবাকের নদীর পাড়ে মাছ কিনতে গেলে উল্লেখিত বিবাদীরা তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এবং অন্যায়ভাবে ঝগড়ার সৃষ্টি করেন এরই মধ্যেই বিবাদীরা গালমন্দ করতে থাকে। তখন তাদেরকে গালমন্দ করতে নিষেধ করায় সকল বিবাদীরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে দেশীয় অস্ত্রে সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে হাতে ধারালো দা, লোহার রড ও লাঠি নিয়া, মোঃসোহেল মোঃবাকেরকে এলোপাথারী মারধর করে। তখন উল্লেখিত সাক্ষীগন তাকে বাঁচাতে আসলে তাদেরকেও সকল বিবাদীরা এলোপাথারী মারধর করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফুলা জখম করে। তখন বিবাদীরা অভিযোগের স্বাক্ষী মোঃসোহেল কে হত্যার উদ্দেশ্যে লোহার রড দিয়া মাথায় বারি দিয়া মাথার মাঝখানে গুরুতর রক্তাক্ত কাটা জখম করে। অন্যান্য বিবাদীরা বাকেরকে হত্যার উদ্দেশ্য মারধর করে।মোঃজামাল পিটার জানান আমার ছেলে মামলার ১ নং সাক্ষী মোঃসোহেল মাছ কিনার জন্য নদীর পাড়ে গেলে বিবাদীরা পূর্বপরিকল্পিত ভাবে লোহার রড,রান দ্যা,হকিস্টিক, এসএস পাইপ সহ অনেক অস্ত্র সস্তে সজ্জিত হইয়া ২ নং আসামী ১ নং সাক্ষী আমার ছেলে কে পিছন থেকে এসএস পাইপ দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্য মাথায় আঘাত করে ১ নং আসামী আমার ছেলে মোঃসোহেলকে লোহার রড দিয়ে খুনের উদ্দেশ্য মাথায় আঘাত করিলে উক্ত আঘাত বামহাতের কব্জির উপর লাগিয়া মারাত্মক হাড় ভাঙার জখম হয়।৪ নং আসামী পিছন হইতে মাটিতে ফালাইয়া ২ নং সাক্ষী বকেরকে এলোপাতাড়ি মারপিট করিয়া ফুলা জখম করে। ৩ নং বিবাদী তার হাতে থাকা গামছা দিয়ে ১ নং সাক্ষী আমার ছেলের গলায় পেছাইয়া শ্বাসরুদ্ধকরে হত্যার চেষ্টা করে। ৫/৭ নং বিবাদী ১ নং সাক্ষী আমার ছেলেকে অপহরণের উদ্দেশ্য নদীতে ফালানোর চেষ্টা করিলে সকল সাক্ষীরা ঘটনা স্থানে চলে আসলে তারা প্রানে বেঁচে যায়।৫ নং আসামী যাওয়ার সময় ১ নং সাক্ষীর কাছে মাছ কেনার জন্যা যে টাকা এনেছে সেই ২০৫০০ টাকা ডাকাতির কায়দায় নিয়ে যায়। তিনি আরও বলেন অন্যান্য আসামীরা মৃত্যুর ভয় ও হুমকি দিয়ে চলে যায়। আমার ছেলে মোঃসোহেলের অবস্থা আশংকা অবস্থা চরফ্যাশন জরুরি বিভাগে ভর্তি করিলে কতব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার করেন। বর্তমানে আমার ছেলে সোহেল মুমুর্ষ অবস্থায় ” ঢাকা ধানমন্ডি সুপার হসপিটালাইজেশন হাসপাতাল লিঃ চিকিৎসাধীন আছে। চর মাদ্রাজ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃআঃহাই মিয়াকে ফোন দিলে তিনি বলেন ভাই ওরা এরকম ঘটনা আরও একবার আমার সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্যর উপর হামলা করেছে ঐ ঘটনা মিমাংসা হতে না-হতেই আবার এই ঘটনা আমি আইনগত পরামর্শ দিয়েছি।প্রতিপক্ষের মোবাইল নাম্বার টি বন্ধ থাকায় তাদের বক্তব্য নেওয়া যায় নি। এঘটনায় চরফ্যাশন থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোঃশাখাওয়াত হোসেন বলেন এবিষয়ে আমি একটি এজাহার পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেব ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
Theme Customized BY LatestNews